প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফকে মৃত্যুদণ্ড দিল বিশেষ আদালত

রাশিদ রিয়াজ : পাকিস্তানের ইতিহাসে এই প্রথমবারের মত একজন সাবেক রাষ্ট্রপতিকে রাষ্ট্রদ্রোহের দায়ে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হলো। পারভেজ মোশাররফের বিরুদ্ধে দুইবার পাকিস্তানের সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগে বিচারের জন্যে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের শাসনামলে এ বিশেষ আদালত গঠন করা হয়। ৩ জন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চের ২ জনই পারভেজ মোশাররফের বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার ব্যাপারে একমত হন।

ইসলামাবাদে মঙ্গলবার আদালতে সাবেক এই সামরিক শাসকের বিরুদ্ধে বড় রকমের রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে ফাঁসির সাজা দেয়। ২০০৭ সালের নভেম্বর মাসে দেশে জরুরি অবস্থা জারির জন্য মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করেছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। তার বিরুদ্ধে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়। শুনানি শেষে ২০১৪ সালের মার্চ মাসে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। তবে ওই রায়ের বিরুদ্ধে আবেদন ও অন্যান্য আইনি জটিলতায় সাজা ঘোষণা ক্রমে পিছিয়ে যায়।এ অবস্থায় ২০১৬ সালে দেশ ছাড়েন প্রাক্তন সাবেক এই সেনাপ্রধান। বর্তমানে দুবাইয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। পাকিস্তান সরকার ও আদালতের মধ্যে চলা টানাপোড়েনের শেষে গত ৫ ডিসেম্বর বিশেষ আদালত জানিয়েছিল, ডিসেম্বরের ১৭ তারিখ শুনানি শেষে সাজা ঘোষণা করা হবে। এই মামলায় ৭৬ বছরের মোশাররফকে বক্তব্য দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিল বিশেষ আদালত।  বিশেষ আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনি আবেদন করেছিলেন, তার অবর্তমানে যেন মামলার শুনানি না-হয়। সুস্থ হয়ে তিনি আদালতে হাজিরা না-দেওয়া পর্যন্ত বিশেষ আদালতের সংরক্ষিত রায় খারিজ করে দেওয়ার জন্য লাহোর হাইকোর্টে আবেদন জানিয়েছিলেন তিনি।এই বিশেষ আদালতের তিন সদস্যের বেঞ্চের শীর্ষে রয়েছেন পেশাওয়ার হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি ওয়াকার আহমেদ শেঠ।

উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালে থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানের ক্ষমতায় ছিলেন মুশারফ। কারগিল যুদ্ধের পর সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের উপর দায় চাপিয়ে ক্ষমতা দখল করেন তিনি। তার আমলেই পাক-অধিকৃত কাশ্মীরে ভারত বিরোধী কার্যকলাপ তুঙ্গে পৌঁছায়। যুক্তরাষ্ট্রে  ৯/১১ হামলার পর তার নেতৃত্বে আফগানিস্তানে সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যুদ্ধে যোগ দেয় পাকিস্তান। তাৎপর্যপূর্ণভাবে, মোশাররফের আমলে বেশ মজবুত হয় পাকিস্তানের অর্থনীতি। ২০০২ সালে প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হলেও প্রতিশ্রুতি মতো সেনাপ্রধানের পদ ছাড়তে অস্বীকার করেন মোশাররফ। ২০০৭ সালে তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের হওয়ায় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিকে বরখাস্ত করেন তিনি। তারপর থেকেই প্রাক্তন সেনাপ্রধানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের হওয়া বইতে শুরু করে। বাধ্য হয়ে গদি ছাড়তে হয় তাকে। এদিকে, বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এই রায় ঘোষণার পর আপাতত দেশে ফিরবেন না প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মোশাররফ।

এদিকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কন্য মরিয়ম নওয়াজ জানিয়েছেন, পারভেজ মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে তদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তার বাবা। এর পর থেকেই তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয় বলে দাবি মরিয়মের। দুর্নীতি মামলায় স্বাস্থ্যগত কারণে মুক্তি পেয়ে বর্তমানে লন্ডনে চিকিত্‍‌সা করাচ্ছেন নওয়াজ শরীফ। তাকেও সাত বছর কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত